কবিতা

দু’টি কবিতা

কিংশুক চট্টোপাধ্যায়

  • বল্, নিবি কি আমায়

     

    আমি খুঁজেছি চোখের পাশে একলা যে-নদী ভাসে সন্দেহ পান্সিতে পোড়াল সে জল,

    আমি কিছুটা স্বপ্নে আঁকি বাকিটা ডাঙায় রাখি লাজুক পাতায় ঢাকি মেঘ চলাচল।

     

    আমি স্বপ্নের খোয়া ভাঙি হাওয়া ছুঁয়ে আরও নামি বুকের আখরে পাতি মাদুরের ঘ্রাণ,

    আমি গোলাপি বিষাদ খুঁজি পাকা ডালিমের গালে বুলিয়ে আঙুলে তুলে আনি অঘ্রান।

     

    আমি কুড়িয়ে পালক রাখি আলোকে হাওয়ায় ঢাকি আদরে আঁচিলে খুঁজি অপেক্ষা তোর,

    দেখি দোয়েলের ডানা থেকে নামল আকাশ ঝেঁপে রোদ্দুর মুছে দিল শরীরের ভোর।

     

    আমি সমুদ্র পুষে রাখি রাত্তির গায়ে মাখি ঘুমের সুতোয় বুনি জোনাকি আড়াল,

    তুই নিবি কি নিবি না তুলে আমাকে আগুনে ছুঁলে মুঠোয় দিবি না নদী স্পর্শের জল?

    . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . .

     

    ধুলো-মেঘ হারমোনিয়াম

     

    অল্প কথার লিকারে

    দু’চামচ সন্ধের গান

    আঙুলে খুললে পোষা নদী

    ধুলো-মেঘ হারমোনিয়াম

     

    ঝরাপাতা উড়েছিল কিছু

    কখনও কথার খালি পা

    হেঁটে ছিল ঠোঁটে কথা খই

    আলো খোঁজে গোপনীয়তা

     

    প্লেটে রাখা বিস্কুটে তাই

    হাওয়া এসে আলো মুছে দেয়

    কেটলিতে জিরিয়েছে জল

    কথা পাশ ফেরে কবিতায়

     

    রিডে রাখা আঙুলের ক্ষত

    স্পর্শতে নদী ভাসমান

    মাটি তোর শরীরে বাজুক

    ধুলো-মেঘ হারমোনিয়াম

    - - - - - - - - - - - - - - - - - - - - - - - -

    অঙ্কন: সুব্রত চৌধুরী